শনিবার , অক্টোবর ১৬ ২০২১
   শনিবার|৩১শে আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ|১৬ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
    ৯ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরি
Breaking News

আর কোন জিকে শামীম তৈরি হওয়ার সুযোগ নেই বলে মন্তব্য গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী’র

ফোকাস বাংলা: বিতর্কিত ঠিকাদার জিকে শামীমের মত আর কোন জিকে শামীম তৈরি হওয়ার সুযোগ নেই বলে মন্তব্য করেছেন গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদ এমপি।

রবিবার গণমাধ্যমকে দেয়া সাক্ষাৎকারে শরীফ আহমেদ এমপি এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেছেন, জিকে শামীমের মত দুর্নীতিবাজ ঠিকাদারের কর্মকান্ডে সরকার খুবই বিব্রত। এটি ছিল একটি দুর্ঘটনা। সরকার এধরণের দুর্নীতিবাজকে কঠোর হস্তে রূখে দিয়েছে। যাতে আর কেউ এ ধরণের কর্মকান্ডের সাহস না পায়।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর স্নেহধন্য ও ভালোবাসা পেয়ে এ মন্ত্রণালয়ে কাজ করে যাচ্ছি। তিনি আমাকে যে দায়িত্ব পেয়েছেন তা যথাযথভাবে পালন করার চেষ্টা করে যাচ্ছি।

এ মন্ত্রণালয়কে দুর্নীতিমুক্ত করতে কঠোর অবস্থানের কথা জানিয়ে শরীফ আহমেদ বলেন, মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কেউ দুর্নীতির সঙ্গে জড়ালে তিনি রেহাই পাবেন না। এ বিষয়ে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। এসময় রূপপুর বিদ্যুৎ প্রকল্পে আলোচিত ‘বালিশ কাণ্ডে’ জড়িতদের শাস্তির কথাও উল্লেখ করেন তিনি।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, এ মন্ত্রণালয়ে যোগদানের পর প্রথম সভা করে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী বিতর্কিত জিকে শামীমের প্রতিষ্ঠান জিকেবি অ্যান্ড কোম্পানির সব কাজ বাতিল করে দিয়েছি। গণপূর্ত অধিদপ্তরের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ তার প্রতিষ্ঠানের যেসব কাজ শেষ হয়েছে সেগুলোর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে একটি কমিটি কাজ করছে। এ বিষয়ে যৌথ মূল্যায়ন চলছে। মন্ত্রণালয়ের ১৭ টি প্রকল্পের কাজ পেয়েছিল জিকে শামীমের প্রতিষ্ঠান। আগামীতে দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত কোন প্রতিষ্ঠান এ ধরণের কাজ পাবে না।

দেশের বস্তিবাসী ও মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য বিভিন্ন আবাসন প্রকল্প নেয়ার কথা জানিয়ে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী বলেন, সারাদেশে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্য এবং যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের পরিত্যক্ত বাড়ি বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এখনো দেয়া হচ্ছে। যুদ্ধাহত অস্বচ্ছল মুক্তিযোদ্ধারা নির্দিষ্ট কোনো পরিত্যক্ত বাড়ি বরাদ্দের জন্য আবেদন করলে প্রচলিত বিধি-বিধান অনুযায়ী বিবেচনা করা হয়।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী কেউ গৃহহীন থাকবে না। এ ঘোষণার আলোকে নিম্নআয়ের অসহায় মানুষের গৃহায়ণের জন্য জাতীয় গৃহায়ণ কর্তৃপক্ষের নিজস্ব অর্থায়নে ঢাকার মিরপুরে ১১নং সেকশনে বস্তিবাসীদের জন্য ভাড়াভিত্তিক ৫৩৩টি আবাসিক ফ্ল্যাট নির্মাণ প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। এছাড়া জাতীয় গৃহায়ণ কর্তৃপক্ষের আওতায় অসহায় মানুষের জন্য বাসস্থান/ফ্ল্যাট তৈরির লক্ষ্যে দেশের চিহ্নিত তিনটি পৌরসভা/সিটি কর্পোরেশন (কুমিল্লা, সিরাজগঞ্জ ও নারায়ণগঞ্জ) এলাকায় বাসস্থান উন্নয়নের একটি প্রকল্পের বাস্তবায়ন কাজ চলমান রয়েছে। বিশ্বব্যাংকের সহায়তায় প্রকল্পটিতে পাঁচ হাজার ৭০০ ইউনিট বাসস্থান নির্মাণ/সংস্কার/সম্প্রসারণের সংস্থান রাখা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে সকল জেলার গৃহহীন মানুষের মাঝে স্বল্পখরচে ফ্ল্যাট ও প্লট বরাদ্দের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

About Bappy Chowdhury

Check Also

৭ সেপ্টেম্বর দ্বিতীয় ডোজ শুরু হবে গণটিকার

মাটি ও মানুষ : বিশেষ প্রতিনিধি :- বুধবার (২৫ আগস্ট) সকালে রাজধানীর কেন্দ্রীয় ঔষধাগার মিলনায়তনে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *